samadশিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। জাতীয় উন্নতিতে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। বর্তমানে যুগে জ্ঞান-বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তিই হচ্ছে শিক্ষার অনিবার্য অনুসঙ্গ। প্রতিযোগীতার এই বিশ্বে তাল মিলিয়ে চলতে হলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য বেছে নিতে হবে যুগোপযোগী মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশের অন্যতম জনপদ উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুর, যেখানে রয়েছে সরকারী বেসরকারী অনেক গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু কোমলমতী শিশুদের মেধা ও মননের যথার্থ বিকাশে আধুনিক মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঘাটতি রয়েছে। সচেতন অভিভাবকগণের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণের অঙ্গীকার দিয়ে ফলতঃ অত্র জেলার মফস্বল এলাকার শিক্ষার্থীগণ লক্ষ্মীপুর শহরে অবস্থান করে লেখাপড়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। রুচিশীল ব্যবস্থাপনা ও বাস্তব সম্মত আধুনিক শিক্ষা কৌশল সম্বলিত ছাত্রদের জন্য আবাসন সুবিধা নিয়েই প্রতিষ্ঠানটির পথচলা শুরু হয়েছে। এখানে রয়েছে যুগের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় উপযুক্ত নাগরিক তৈরির লক্ষ্যে ইংরেজী, বিজ্ঞান, কম্পিউটার ও ধর্মীয় শিক্ষার অপূর্ব সমন্বয়। আমাদের প্রত্যাশা  লক্ষ্মীপুর বাসীর স্বপ্ন পূরণে সক্ষম হবে -ইন্শাআল্লাহ।


head_sirশিক্ষাগুরু অ্যারিস্টটলের  মতে ”শিক্ষার শেকড়ের স্বাদ তেতো হলেও এর ফল মিষ্টি”। একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে গ্লোবাল ভিলেজের অধিবাসী হিসেবে প্রতিযোগিতায় টিকে  থাকা ও নিজের সবল উপস্থিতি জানান দিতে  হলে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। শিক্ষার এই মৌলিকতা, এককতা স্বীকার করে হাঁটি হাঁটি পা পা করে প্রতিষ্ঠানটি উচ্চ মানসম্পন্ন কৃতিত্বের সহিত বহতা নদীর মতোই অগ্রসর হচ্ছে।
ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠানটি জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে সকলের নিকট আস্থার প্রতীক হয়ে উঠবে এই আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আমি এই প্রতিষ্ঠানের সর্বাঙ্গীণ সাফল্য ও কল্যাণ কামনা করছি।

মোঃ আলফত আলি
প্রধান শিক্ষক